আধুনিক যুগের চ্যালেঞ্জ ও ইসলাম PDF download

0
388
আধুনিক যুগের চ্যালেঞ্জ ও ইসলাম

প্রসঙ্গ কথা আধুনিক যুগ বলতে আমরা কোন সময়কালকে চিহ্নিত করতে চাচ্ছি ? এর একটি সময়সীমা হচ্ছে, হযরত ঈসা আলাইহিস সালামের নবুওয়াতের সময় শেষ হবার পর শেষ নবী মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের নবুওয়াতের জামানা যখন থেকে শুরু হচ্ছে তখন থেকে নিয়ে কিয়ামত পর্যন্ত। মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম শেষ নবী অর্থাৎ শেষ যুগের তথা আধুনিক যুগের নবী। এই শেষ নবীর পর আর কোনাে নবী তথা কোনাে ধরনের ও কোন প্রকার কোন নবী আসবেন না। ঈসায়ী সপ্তম শতকের শুরু থেকেই বিশ্ব এক নতুন যুগে পদার্পণ করেছে। এ যুগটির সীমানা কিয়ামত পর্যন্ত বিস্তৃত। মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, আমার পৃথিবীতে আগমন কিয়ামতের আলামত। তিনি বলেন, আমার ও কিয়ামতের অবস্থান ঠিক যেমন এই আমার হাতের তর্জনী ও অনামিকার অবস্থান। এই আঙুল দুটির মধ্যকার ব্যবধান অতি সীমিত। এটি একটি একক সময়কাল নির্দেশক। তাই আমরা এই সমগ্র যুগটিকে মুহাম্মদী ও আধুনিক যুগ বলছি। এর আর একটি প্রচলিত সময়সীমা আছে। ঘটনার ধারাবাহিকতার সাথে এর সম্পর্ক। ঘটনার ভিত্তিতে একে তিন ভাগে ভাগ করা হয় প্রাচীন, মধ্য ও আধুনিক। এর আধুনিক অংশটি সাধারণত বর্তমানকেই নির্দেশ করে। বর্তমান অঞ্চলের নিকট অতীত সহ গঠিত। এ অংশটি ঘটমান বর্তমান থেকে নিয়ে পেছনে কয়েকশো বছর পর্যন্ত বিস্তৃত হতে পারে। এ প্রেক্ষিতে বিচার করলে আমরা এ গ্রন্থে যে আধুনিক যুগের কথা বলছি তার সময়সীমাটি কতদূর পর্যন্ত বিস্তৃত । এটা অবশ্যই আমাদের অর্থাৎ এ যুগের মানুষের বিচার্য বিষয়। শুরুতে আমরা মুহাম্মদী নবুওয়াতের সমগ্র যুগকেই আধুনিক বলেছি। আবার এখানে সেই যুগ থেকে একটি অংশ কেটে নিচ্ছি। এর কারণটি যথার্থই গুরুত্বপূর্ণ । এর কারণ মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের নবুওয়াতী কার্যক্রম ব্যক্তি, সমাজ ও রাষ্ট্রীয় জীবন পর্যন্ত বিস্তৃত ছিল। তার ইন্তেকালের পর এক হাজার বছরের বেশি সময় পর্যন্ত বিশ্বের বিরাট অংশে ইসলামী জীবন বিধান ও ইসলামী শরীয়ত প্রতিষ্ঠিত ছিল। বিগত তিন চারশো বছর থেকে এর সীমানা সংকুচিত হয়ে আসতে থেকেছে। এই সাথে ইউরোপীয় খৃষ্টবাদ জাতি গুলো তাদের সাম্রাজ্যবাদী ও ঔপনিবেশিক শাসন ছড়িয়ে দিয়েছে সারা বিশ্বে। মুসলমানদের দু-একটি ছাড়া প্রায় সমস্ত দেশই তাদের শাসন ভুক্ত হয়েছে। শিক্ষা ব্যবস্থার মাধ্যমে তাদের বিভ্রান্ত ও ইসলাম বিরোধী চিন্তা এসব দেশে ছড়িয়ে পড়েছে। এসব দেশে তারা ইসলামী আইন রহিত করে তাদের সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় তথা ইসলাম বিরোধী আইন জারী করেছে। তাদের কুফরী, মুশরিকানা ও নাস্তিক্যবাদী জীবন চর্চা মুসলমানদেরকে প্রভাবিত করেছে। | মোটকথা বিগত দু-আড়াই শসা বছর থেকে মুসলমান ইসলামী জীবনধারা থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে একটি অনৈসলামী জীবন পরিবেশে বসবাস করছে। তাদের চিন্তার ধারা ইসলামের সম্পূর্ণ বিপরীত পথে এগিয়ে চলছে। তাদের বিরাট অংশ ইসলামী আইনকে কার্যকর বলে মনে করছে না। ইসলামী আইন কার্যকর না থাকার কারণে গত কয়েক বছর থেকে তার মধ্যে ইজতিহাদী কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। এর ফলে জীবন থেকে আইন অনেক দূরে সরে গেছে।

এই সময়কালটাকে আমরা আমাদের সুবিধার্থে আধুনিক যুগ বলে চিহ্নিত করতে চাই। এই যুগ ইসলাম ও মুসলমানদের ইসলামী জীবন চর্চার জন্য যে সংকট সৃষ্টি করে দিয়েছে আমাদের সামনে রয়েছে তারই চিত্র। মূলত এ সংকট আমাদের জীবনকে ঘিরে। তবে জীবনের তিনটি বৃহত্তর গুরুত্বপূর্ণ এলাকাকেও আমরা এখানে সামনে আনছি। সে তিনটি হচ্ছে সমাজ, সংস্কৃতি ও শিক্ষা। এ তিনটি এলাকায় যেসব চ্যালেঞ্জ এসেছে তার কিছু অংশের পর্যালোচনার মধ্যে এখানে ইসলামী চিন্তা ও জীবনধারার পুনর্বিন্যাসের প্রচেষ্টা চালানো হয়েছে। তবে এ চ্যালেঞ্জ অত্যন্ত ব্যাপক ও বিস্তৃত। বরং বলা যায় সর্বব্যাপী। এর ওপর ব্যাপক আলোচনা-পর্যালোচনা হওয়া প্রয়োজন। | এর অধিকাংশ প্রবন্ধ ১৯৮৩-১৯৯৩ সালের মধ্যে এবং ছ-সাতটি পরবর্তীতে লেখা হয়। ইতিপূর্বে বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় এগুলাে প্রকাশিত হয়েছে। সচেতন পাঠকবর্গ এগুলাের মধ্যে কিছু চিন্তার পােরাক পাবেন বলে আশা করি।

আবদুল মান্নান তালিব

১৮-০১-৯৫

আধুনিক যুগের চ্যালেঞ্জ ও ইসলামDownload

if আধুনিক যুগের চ্যালেঞ্জ ও ইসলামpdf (Adhonik Jugar Chalange o Islam pdf) link broken please comment below.

Leave a Reply